কিভাবে ব্যাংকে কারেন্ট একাউন্ট খুলবেন এবং ব্যাংক কারেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম - Joy D. Biswas ✌✌™

Joy D. Biswas ✌✌™

Joy D. Biswas ✌✌™ Personal Webpage

Joy D. Biswas ✌✌™

Home Top Ad

Post Top Ad

Friday, September 6, 2019

কিভাবে ব্যাংকে কারেন্ট একাউন্ট খুলবেন এবং ব্যাংক কারেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম


কারেন্ট একাউন্ট প্রধানত ব্যবসায়ীদের জন্য খোলা হয়ে থাকে। কোন সুদ প্রদান করা হয় না। দিনে যত খুশি লেনদেন করা যায়। ভবিষ্যতে ঋন হিসাব খুলতে সুবিধা হয়। ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান হলে অবশ্যই চলতি হিসাব খুলতে হবে, সঞ্চয়ী হিসাব খোলা যাবে না। লাভজনক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান যেমন স্কুল/কলেজ ইত্যাদি চলতি হিসাব খুলতে পারবে। কোন ব্যবসায়ী তার নিজের নামেও চলতি হিসাব খুলতে পারবেন। কোন বিশেষ পেশাজীবি যেমন আইনজীবি/ডাক্তার তার নিজের নামে চলতি হিসাব খুলতে পারবেন।

এই একাউন্টের ধরণ হলো, একাউন্ট হোল্ডার (হিসাবধারী) যে কোনো সময় যে কোনো পরিমাণ টাকা উত্তোলন করতে পারে। আর ব্যাংকও ঐ পরিমাণ টাকা তাকে দিতে বাধ্য। এর জন্য একাউন্ট হোল্ডারকে আগাম কোনো নোটিশ ব্যাংককে দিতে হয় না। বরং একাউন্ট হোল্ডার তার ইচ্ছামত প্রয়োজন পরিমাণ টাকা যে কোনো সময় উত্তোলন করতে পারে। কারেন্ট একাউন্টে ব্যাংক কর্তৃক গ্রাহককে কোনো সুদ বা লাভ দেওয়া হয় না। বরং ব্যাংক একাউন্ট হোল্ডার থেকে তার অর্থ সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার জন্য নির্দিষ্ট হারে বার্ষিক সার্ভিস চার্জ (Service Charge) নিয়ে থাকে।

কারেন্ট ডিপোজিট অ্যাকাউন্ট এর সুবিধা

• এই হিসাবের বিপরীতে চেক ইস্যু করা হয়।
• এই হিসাবে ডেবিট কার্ড ইস্যু করা হয়।
• ইন্টারনেট ব্যাংকিং সুবিধা পাওয়া যায়।
• এসএমএস ব্যাংকিং সুবিধা পাওয়া যায়।
• অনলাইন সুবিধা পাওয়া যাবে।
• RTGS ও BEFTN সুবিধা পাওয়া যাবে।
• অন্য শাখায় ফান্ড স্থানান্তর করা যায়।
• আনলিমিটেড লেনদেন করা যায়।


অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়মাবলী

নিম্নে কারেন্ট বা চলতি অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়মাবলী তুলে ধরা হলো-
১. হিসাব খোলার আবেদন পত্র যা আবেদনকারী/আবেদনকারীগণকে পূরণ ও স্বাক্ষর করতে হবে (যা ব্যাংক সরবরাহ করবে)।
২. টিপি (TP) ও কেওয়াইসি (KYC) ফরম পূরণ করতে হবে (যা ব্যাংক সরবরাহ করবে)।
৩. পরিচয় প্রদানকারী কর্তৃক সত্যায়িত আবেদনকারী/আবেদনকারীগণের সম্প্রতি তোলা ২ (দুই) কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
৪. জাতীয় পরিচয় পত্র/ বৈধ পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স/নাগরিকত্ব সনদ অথবা অন্যান্য ছবি সম্বলিত পরিচয় পত্রের অনুলিপি।
৫. ব্যাংকের যে কোন চলতি হিসাবধারী কর্তৃক পরিচিতি প্রদান [পরিচয়দানকারীর হিসাবটি নিয়মিত হবে এবং কমপক্ষে ৬ মাস ধরে হিসাব পরিচালনা করতে হবে]।
৬. নমিনী বা নমিনীগণের বিস্তারিত বিবরণ ও আবেদনকারী কর্তৃক সত্যায়িত প্রত্যেকের ১ (এক) কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
৭. হিসাব ঠিকানার স্বপক্ষে সাম্প্রতিক ইউটিলিটি বিল (গ্যাস, বিদ্যুৎ, ওয়াসা, টেলিফোন) এর অনুলিপি (যদি থাকে)।
৮. নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা দিতে হবে, যার সর্বনিম্ন পরিমাণ ২০০০ টাকা।
৯. হালনাগাদ টিআইএন (TIN) সার্টিফিকেটের অনুলিপি (যদি থাকে)।
১০. বৈধ ও হালনাগাদ ট্রেড লাইসেন্স এর কপি।
১১. প্রতিষ্ঠানের সিল।


অংশীদারী প্রতিষ্ঠান হলে (For Partnership Firm)

১. পার্টনারশীপ ডীড এর কপি (রেজিষ্টার্ড/নোটারাইজড)
২. অংশীদারগণ একক বা যৌথভাবে (অন্যান্য অংশীদার কর্তৃক যথাযথভাবে অনুমোদিত) হিসাব পরিচালনা করতে পারবে।
৩. রেজিষ্ট্রেশন সার্টিফিকেট (যদি রেজিষ্ট্রেশনকৃত হয়ে থাকে)
৪. পার্টনারদের তালিকা ঠিকানাসহ।
৫. একাউন্ট খোলার জন্য এবং একাউন্ট পরিচালনার জন্য মনোনীত ব্যাক্তির সপক্ষ্যে রেজুলেশন যা পার্টনার কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে।


প্রতিষ্ঠান লিমিটেড কোম্পানী হলে (For Limited Company)

১. মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব এসোসিয়েশন এর সত্যায়িত অনুলিপি।
২. সার্টিফিকেট অব ইনকর্পোরেশন এর অনুলিপি।
৩. সার্টিফিকেট অব কমেন্সমেন্ট অব বিজনেস এর অনুলিপি (পাবলিক লিমিটেড কোম্পানীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য)।
৪. অনুমোদিত ব্যক্তি/ব্যক্তিগণ কর্তৃক হিসাবটি খোলা ও পরিচালিত হবে এই মর্মে কোম্পানীর পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক গৃহীত সিদ্ধান্তের অনুলিপি।
৫. এজেন্ট কর্তৃক হিসাব খোলা এবং পরিচালনার জন্য এজেন্টের সাথে চুক্তির অনুলিপি।
৬. সকল ডিরেক্টরদের ছবি।
৭. সকল ডিরেক্টরদের পাসপোর্টের/আইডি কার্ডের (প্রতিরক্ষা কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে)/ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের প্রদত্ত সনদের কপি।
৮. ফরম-১২ এবং কোম্পানীর প্যাডে ডিরেক্টরদের নামের তালিকা।





                                                            



If You Have Any Question Or Comment Please Write A Comment, I Will Answer It As Soon As Possible....Thank You....

যদি আপনার কোনও প্রশ্ন বা মন্তব্য থাকে তবে মন্তব্য লিখুন, আমি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এর উত্তর দেবো.......... আপনাকে ধন্যবাদ ।।

No comments:

Post a Comment

Post Bottom Ad